Azkaar after salaah

Azizul Islam bhai from New York shared this by email: September 9,2020

*ইসলামে কিছু গুরুত্বপূর্ণ আমল*

*১. আল্লাহর নিকট ক্ষমা চাওয়া:* রাসূলুল্লাহ (সা.) প্রত্যেক ফরয নামায শেষে তিন বার ‘আসতাগফিরুল্লাহ্‌’ বলতেন। اسْتَغْفِرُاللهَ. (মুসলিম, ১২২২)।

*২. আল্লাহর গুণকীর্তন করা:* তারপর “আল্লাহুম্মা আনতাস সালাম ওয়া মিনকাস সালাম, তাবারকতা ইয়া যাল-জালা-লী ওয়াল ইকরাম”, اللهم انت السلام و منك السلام تباركتا يا ذا الجلال و الإكرام. এটি একবার পড়তেন। (মুসলিম, ১২২১)।

*৩. তাসবীহ, তাহমীদ, তাকবীর*: রাসুল (সা.) প্রত্যেক ফরজ সালাত শেষে সুবহানাল্লাহ  (৩৩ বার); আলহাম্দুলিল্লাহ (৩৩ বার); আল্লাহু আকবার। (৩৪ বার) পাঠ করতেন

*৪. আল্লাহ একমাত্র ইলাহ – ঘোষণা দেওয়া:* লা ইলা-হা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারীকা-লাহু লাহুল মুলকু ওয়ালাহুল হামদু

ওয়া হুওয়া আ’লা কুল্লি শাইয়িন ক্বদীর। একবার (১ বার)। এগুলো পাঠে গুনাহসমূহ সমুদ্রের ফেনারাশির মতো অসংখ্য হলেও ক্ষমা করে দেয়া হয়। (মুসলিম, ১২৪০)।

لا إله إلا الله وحده لا شريك له له الملك و له الحمد و هو على كل شيئ قديرٌ

*৫. আয়াতুল কুরসী পাঠ:* সূরা বাক্বারা: আয়াত-২৫৫ কে আয়াতুল কুরসী বলে; একবার (১ বার) পাঠ ।

سُوۡرَةُ البَقَرَة

ٱللَّهُ لَآ إِلَـٰهَ إِلَّا هُوَ ٱلۡحَىُّ ٱلۡقَيُّومُ‌ۚ لَا تَأۡخُذُهُ ۥ سِنَةٌ۬ وَلَا نَوۡمٌ۬‌ۚ لَّهُ ۥ مَا فِى ٱلسَّمَـٰوَٲتِ وَمَا فِى ٱلۡأَرۡضِ‌ۗ مَن ذَا ٱلَّذِى يَشۡفَعُ عِندَهُ ۥۤ إِلَّا بِإِذۡنِهِۦ‌ۚ يَعۡلَمُ مَا بَيۡنَ أَيۡدِيهِمۡ وَمَا خَلۡفَهُمۡ‌ۖ وَلَا يُحِيطُونَ بِشَىۡءٍ۬ مِّنۡ عِلۡمِهِۦۤ إِلَّا بِمَا شَآءَ‌ۚ وَسِعَ كُرۡسِيُّهُ ٱلسَّمَـٰوَٲتِ وَٱلۡأَرۡضَ‌ۖ وَلَا يَـُٔودُهُ ۥ حِفۡظُهُمَا‌ۚ وَهُوَ ٱلۡعَلِىُّ ٱلۡعَظِيمُ (٢٥٥)

প্রত্যেক ফরজ নামাযের পর আয়াতুল কুরসি পড়লে তার আর বেহেস্তের মধ্যে মৃত্যু ছাড়া আর কোন দূরত্ব থাকেনা। [নাসাঈ]

*৬. আল্লাহুম্মা আজিরনী মিনান নার:*  ( O Allah, save me from hellfire).

এই দু’য়া সাত বার (৭ বার), ফজর ও মাগরি সালাতের পর। সে দিন বা সে রাতে মারা গেলে আল্লাহ তাকে জাহান্নাম থেকে রক্ষা করবেন।
اللَّهُمَّ اجِرْنِي مِنَ النَّارِ

*৭. সূরা ইখলাস, ফালাক্ব ও সূরা নাস পাঠ:*

 

এই তিনটি সূরা প্রত্যেকটি তিন বার (৩ বার) করে  ফজর ও মাগরিবের পর। রাসূল (সা.) বলেন, সকাল- সন্ধ্যায় এগুলো পাঠ করলে তোমার আর কিছুরই দরকার হবে না।(Only one time in other three prayers of Zohr, Asr, and Esha).

سُوۡرَةُ النَّاس
بِسۡمِ ٱللهِ ٱلرَّحۡمَـٰنِ ٱلرَّحِيمِ

قُلۡ أَعُوذُ بِرَبِّ ٱلنَّاسِ (١) مَلِكِ النَّاسِ (٢) إِلَـٰهِ ٱلنَّاسِ (٣) مِن شَرِّ ٱلۡوَسۡوَاسِ ٱلۡخَنَّاسِ (٤) ٱلَّذِى يُوَسۡوِسُ فِى صُدُورِ ٱلنَّاسِ (٥) مِنَ ٱلۡجِنَّةِ وَٱلنَّاسِ (٦)

سُوۡرَةُ الفَلَق
بِسۡمِ ٱللهِ ٱلرَّحۡمَـٰنِ ٱلرَّحِيمِ

قُلۡ أَعُوذُ بِرَبِّ ٱلۡفَلَقِ (١) مِن شَرِّ مَا خَلَقَ (٢) وَمِن شَرِّ غَاسِقٍ إِذَا وَقَبَ (٣) وَمِن شَرِّ ٱلنَّفَّـٰثَـٰتِ فِى ٱلۡعُقَدِ (٤) وَمِن شَرِّ حَاسِدٍ إِذَا حَسَدَ (٥)

 

سُوۡرَةُ الإخلاص
بِسۡمِ ٱللهِ ٱلرَّحۡمَـٰنِ ٱلرَّحِيمِ

قُلۡ هُوَ ٱللَّهُ أَحَدٌ (١) ٱللَّهُ ٱلصَّمَدُ (٢) لَمۡ يَلِدۡ وَلَمۡ يُولَدۡ (٣) وَلَمۡ يَكُن لَّهُ ۥ ڪُفُوًا أَحَدٌ (٤)

*৮. দূরূদ শরীফ পাঠ:* দরূদ শরীফ ১০ বার, ফজর ও মাগরিবের পর। কেয়ামতের দিন রাসূলের শাফা’আত লাভ করবে।
*৯. রাদ্বীতু বিল্লাহি রাব্বা, ওয়াবিল ইসলামি দ্বীনা, ওয়াবি মুহাম্মাদিন নাবিয়্যা:* رضيتُ باللهِ ربَّ و بِالاِسْلَامِ دِينًا وَ بِمُحَمَّدٍ نبيًا و رسولا.   এই দু’য়াটি তিন বার (৩ বার), ফজর ও মাগরিব সালাতের পর। তিনি রাসূলুল্লাহ (সা.) হাত ধরে জান্নাতে প্রবেশ করবেন। আল্লাহ উক্ত ব্যক্তিকে সন্তুষ্ট করবেন।
*১০. সুবহানাল্লাহি ওয়াবি-হামদিহি:* سُبْحَانَ اللهِ وَ بِحَمْدِهِ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, যে ব্যক্তি “সুব্‌হানাল্লাহি ওয়াবিহামদিহী” এই দো’য়া প্রতি দিন ১০০ বার পাঠ করবে তার সকল পাপসমূহ মুছে ফেলা হয়, যদিও তা সাগরের ফেনারাশির সমান হয়ে থাকে। (বুখারী ৭/১৬৮, নং ৬৪০৫; মুসলিম ৪/২০৭১, নং ২৬৯১)

আল্লাহুম্মা সাল্লী, ওয়া সাল্লীম, ওয়া বারিক আ’লা মুহাম্মাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *